গুলশানের কাঁচাবাজারে অগ্নিকাণ্ড তদন্তে ২ কমিটি

রাজধানীর গুলশানে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) মার্কেটের কাঁচাবাজারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা তদন্তে দু’টি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এর মধ্যে ডিএনসিসির পক্ষ থেকে ৭ সদস্যের একটি এবং ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে ৫ সদস্যের আরেকটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

ডিএনসিসির গঠন করা কমিটিতে এই সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলীকে আহ্বায়ক ও বিদ্যুৎ বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীকে সদস্য সচিব করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন— ডিএনসিসির প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা, আইন কর্মকর্তা, সম্পত্তি কর্মকর্তা, নির্বাহী প্রকৌশলী (অঞ্চল-৩) এবং ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের একজন প্রতিনিধি।

এই কমিটি অগ্নিকাণ্ডের দায়-দায়িত্ব নির্ধারণ, ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ ও ভবিষ্যৎ করণীয় সম্পর্কে সুপারিশ প্রণয়ন করবে। পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে কমিটিকে রিপোর্ট দিতে হবে।

এদিকে শনিবার অগ্নিকাণ্ডের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক (অপারেশন) মেজর শাকিল নেওয়াজ জানান, ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক শামীম আহসান চৌধুরীকে প্রধান করে ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

তিনি জানান, অগ্নিকাণ্ডের কারণ ও ক্ষতি নিরূপণে গঠিত এই কমিটিকে আগামী সাতদিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস জানায়, শনিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে রাজধানীর গুলশান-১ এর ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মার্কেটে আগুন লাগে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ১১টি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভাতে কাজ শুরু করে। পরে আরও ৯টি ইউনিট অগ্নিনির্বাপনী কাজে যোগ দেয়। তাদের চেষ্টায় ৩ ঘণ্টা পর সকাল সাড়ে ৮টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে নৌবাহিনী, ডিবি পুলিশ, গুলশান থানা পুলিশ ও রেডক্রিসেন্টের সদস্যরাও যোগ দেন। অগ্নিকাণ্ডে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। তবে বাজারের দোকানপাট পুড়ে যায়।

প্রসঙ্গত, এর আগে ২০১৭ সালেও ডিএনসিসির এই কাঁচাবাজারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয় দোকানিরা। এরপর অস্থায়ীভাবে দোকান তৈরি করে পুনরায় মার্কেটটি চালু করা হয়েছিল।